মূল্য সমন্বয়ের দাবিতে উত্তরবঙ্গের ঠিকাদারদের মতবিনিময় সভা


Published: 2022-03-31 19:58:31 BdST, Updated: 2022-05-25 07:24:42 BdST

 বিজনেস ওয়াচ প্রতিবেদক:নির্মাণ সামগ্রীর  মূল্য সমন্বয়ের দাবিতে উত্তরবঙ্গের ১৬ জেলার ঠিকাদাররা মতবিনিময় সভা করেছে। মঙ্গলবার  (২৯ মার্চ) দুপুরে বগুড়ার মাটিডালী মোড়ে ক্যাফে সোয়াদ এ উত্তরবঙ্গের ১৬ জেলার ঠিকাদাররা মতবিনিময় এ সভা করেন। সভায় অংশগ্রহণ করেছে রাজশাহী, বগুড়া, জয়পুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, নওগাঁ, নাটোর, রংপুর, দিনাজপুর, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, নীলফামারী, পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলার ঠিকাদাররা। নির্মাণ সামগ্রীর অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে দেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে স্থবিরতা এবং নির্মাণ প্রতিষ্ঠান সমূহকে নিশ্চিত ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার জন্য মূল্য সমন্বয়ের দাবিতে এ সভা করেন তারা। বাংলাদেশ ঠিকাদার সমন্বয় পরিষদ বগুড়া জেলার আহ্বায়ক আতিকুর রহমান বাদলের সভাপতিত্বে  বক্তব্য রাখেন সমন্বয় পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক ইমদাদুল হক ইমদাদ, আনোয়ারুল ইসলাম, কামরুল আলম,  গাইবান্ধা জেলা এলজিইডি ঠিকাদার সমিতির সভাপতি  শাহজাহান খান লাবু, জয়পুরহাট জেলা ঠিকাদার সমিতির আহ্বায়ক কালিচরণ দাস, ঠাকুরগাঁও ঠিকাদার সমিতির মাসুদ রানা, কুড়িগ্রাম জেলার ঠিকাদার প্রতিনিধি মোস্তাফিজুর রহমান সাজু, নওগাঁ ঠিকাদার সমিতির হাসানুল আল মামুন, রাজশাহী ঠিকাদার সমিতির হারুনুর রশীদ, বগুড়া ঠিকাদার সমিতির কামরুল আলম সহ ১৬ জেলার ঠিকাদার প্রতিনিধিবৃন্দ।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পানি উন্নয়ন বোর্ড ঠিকাদার সমিতির সভাপতি ও বাংলাদেশ ঠিকাদার ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ম. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, উন্নয়ন বান্ধব বর্তমান সরকারের দূরদর্শিতা এবং কার্যকরি পদক্ষেপ সমূহের কারণে বিশ্ব দরবারে আমরা উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের কাতারে আসীন। বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের সঠিক ও সফল বাস্তবায়নের মাধ্যমে পৃথিবীর বুকে আমাদের প্রাণপ্রিয় জন্মভূমিকে মাথা উঁচু করে দাঁড় করানোর জন্য সরকার বদ্ধপরিকর। সরকারের গৃহীত বিভিন্ন ভৌত অবকাঠামোসহ উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে সহায়ক হিসাবে ঠিকাদাররা সাফল্যের সাথে বাস্তবায়ন করে আসছেন। অবকাঠামোগত উন্নয়ন সময়মত বাস্তবায়ন না হলে দেশের উন্নয়ন মারাত্মকভাবে বাধাগ্রন্থ হবে। চলমান ভয়ানক সংক্রামক কোভিড-১৯ এর কারণে আমরা ভয়াবহ ক্ষতির সম্মুখীন। এর মধ্যে অত্যন্ত পরিতাপ ও দুঃখের বিষয় এই যে, বিগত ১ বৎসরের অধিক সময় ধরে নির্মাণ প্রকল্পের মূল উপকরণ সমূহ যেমন- লৌহ এবং লৌহ জাতীয় দ্রব্য, সিমেন্ট, পাথর, ইট, বিটুমিন, ডিজেল, এ্যালুমিনিয়াম, বিল্ডিং ফিনিশিং আইটেম ইত্যাদি দ্রব্যাদি সহ এ খাতের প্রায় সকল প্রকার নির্মাণ সামগ্রীর মূল্য অস্বাভাবিক ও লাগামহীনভাবে বৃদ্ধি পেয়ে অসহনীয় পর্যায়ে উন্নীত হয়েছে। প্রতিটন রডের বর্তমান মূল্য ৯০,০০০ টাকা থেকে ৯৫,০০০ টাকা, যা ২০২১ সালের মার্চ মাসে ছিল ৫৫,০০০ টাকা থেকে ৬০,০০০ টাকা। অর্থাৎ শতকরা বৃদ্ধির হার ৬০% এর অধিক। পানি সরবরাহ, পয়নিষ্কাশন, বৈদ্যুতিক সামগ্রী, ইলেক্ট্রো ম্যাকানিক্যাল দ্রব্য সমূহের মূল্যও ৪০% - ৯৪% এর অধিক বৃদ্ধি পেয়েছে। এ ছাড়াও এ শিল্পের সাথে জড়িত শ্রমিক, সুপারভাইজার ও দক্ষ জনবলের মজুরীও শতকরা ৬০-৭০% বৃদ্ধি পেয়েছে। জ্বালানি তেল বিশেষ করে ডিজেলের মূল্য ৬৫ টাকার স্থলে বৃদ্ধি পেয়ে ৮০ টাকা হওয়ার ফলে নির্মাণ সামগ্রী পরিবহন ও যন্ত্রপাতি চালনা ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। চলমান রাশিয়া ও ইউক্রেনের যুদ্ধ পরিস্থিতিতে আমদানিকৃত সকল নির্মাণ মালামালের ও যন্ত্রপাতির মূল্যও ক্রমান্বয়ে আশংকাজনক-ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ ছাড়াও নির্মাণ প্রকল্পে ব্যবহৃত পানি ও বিদ্যুৎ বিল চুক্তিকৃত রেট এর সাথে সন্নিবেশিত না থাকায় ঠিকাদারকে তা পরিশোধ করতে হয়। গত অর্থ বছরে দরপত্র দাখিলের সময় ৫% হারে এআইটি ধার্য ছিল এখন তা ৭% করা হয়েছে এমন পরিস্থিতিতে প্রকল্পের অগ্রগতিতে অতি মন্থরতা দেখা দিয়েছে, বাস্তব অগ্রগতি খুবই হাতাশাব্যঞ্জক। কাজের স্বাভাবিক অগ্রগতি অর্জিত না হওয়ার ফলে ঠিকাদারগণ বিল পাচ্ছেন না। ফলে গৃহীত ব্যাংক ঋণ পরিশোধ করাও তাঁদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না বিধায় ব্যাংক হতে আর্থিক সহায়তা প্রাপ্যতা অনিশ্চিত হয়ে যাচ্ছে এবং ঠিকাদারগণের আর্থিক সক্ষমতা ব্যাপকভাবে হ্রাস পাচ্ছে। নির্মাণ সামগ্রীর সীমাহীন  অসহনীয় ঊর্ধ্বগতিতে ঠিকাদারগণ মারাত্মকভাবে আর্থিক দিক দিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। বর্তমান প্রেক্ষাপটে আমরা চলমান প্রকল্পের কাজ চালিয়ে যেতে পারছি না এবং নূতন কোন দরপত্রেও অংশ গ্রহণ করার সাহস পাচ্ছি না। এমতাবস্থায় চলমান অস্বাভাবিক দরবৃদ্ধির সাথে মূল্য সমন্বয় না করলে সকল নির্মাণ কাজে স্থবিরতা দেখা দিবে এবং প্রকল্প বান্তবায়ন অসম্ভব হয়ে পড়বে          

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।