সূচকের উত্থানে ৯ খাতের শেয়ারে শতভাগ দর বৃদ্ধি


Published: 2022-05-30 11:24:54 BdST, Updated: 2022-06-27 02:02:29 BdST

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার (২৯মে) প্রধান পুঁজিবাজার ডিএসইসি সূচকের উত্থানে লেনদেন শেষ হয়েছে। চলতি বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ সূচক বেড়েছে। ডিএসইর সূচক বেড়েছে ১৩১ পয়েন্ট। এমন উত্থানের দিনে ডিএসইতে ৯ খাতের শতভাগ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে। এদিন শেয়ার বিক্রির চেয়ে শেয়ার ক্রয়ের প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে। এছাড়া প্রকৌশল, ব্যাংক-বিমা এবং আর্থিক খাতের সিংহভাগ শেয়ারের দর বেড়েছে।

প্রধান পুঁজিবাজার ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১৩১ দশমিক ৩৫ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ১০ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৩৬৯ দশমিক ৩৩ পয়েন্টে। ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ২৬ দশমিক ০৩ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৮৯ শতাংশ এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৩৯ দশমিক ৫৫ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৭১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে এক হাজার ৩৯৯ দশমিক ৭৪ পয়েন্টে এবং দুই হাজার ৩৪৬ দশমিক ৯৪ পয়েন্টে।

 রোববার সূচকের এমন উত্থানে ৯ খাতের শতভাগ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে। খাতগুলো হলোÑবিবিধ, বস্ত্র, খাদ্য ও আনুষঙ্গিক, তথ্যপ্রযুক্তি, ট্যানারি, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, সিরামিক, সেবা ও আবাসন এবং ভ্রমণ ও অবকাশ। বিবিধ খাতে ১৫টির মধ্যে শতভাগ কোম্পানির দর বৃদ্ধি পেয়েছে। খাতটিতে  সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে সাভার রিফ্র্যাক্টরিজের ১০ টাকা ৩০ পয়সা বা ৫ দশমিক ৩২ শতাংশ, খান ব্রাদার্সের ৫০ পয়সা বেড়ে ৪ দশমিক ৪৬ শতাংশ, এসকে ট্রিমসের ১ টাকা বেড়ে বা ৪ দশমিক ২০ শতাংশ।

বস্ত্র খাতে ৫৮টির মধ্যে শতভাগ কোম্পানির দর বৃদ্ধি পেয়েছে। সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে তমিজউদ্দিন টেক্সটাইলের ১৭ টাকা ৯০ পয়সা বা ৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ, অলটেক্সের ২ টাকা ১০ পয়সা বা ৯ দশমিক ৯১ শতাংশ, ফ্যামিলিটেক্সের ৪০ পয়সা বা ৯ দশমিক ৭৬ শতাংশ।

খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতে ২১টির মধ্যে শতভাগ কোম্পানির দর বৃদ্ধি পেয়েছে। সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে আরডি ফুডের ৪ টাকা ১০ পয়সা বা ৯ দশমিক ৬৫ শতাংশ, শ্যামপুর সুগারের ৭ টাকা বা ৯ দশমিক  ০২ শতাংশ, জেমিনি সি ফুডের ২৫ টাকা ৯০ পয়সা বা ৮ দশমিক ৭৪ শতাংশ।

তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ১১টি কোম্পানির মধ্যে শতভাগ কোম্পানির দর বৃদ্ধি পেয়েছে। সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে বিডিকমের ২ টাকা ৩০ পয়সা বা ৮ দশমিক ০৭ শতাংশ, আমরা টেকনোলজির ২ টাকা ৩০ পয়সা বা ৭ দশমিক  ৪০ শতাংশ, জেনেক্স ইনফোসিসের ৫ টাকা ৯০ পয়সা বা ৭.২৯ শতাংশ।

ট্যানারি খাতে ৬ কোম্পানির মধ্যে শতভাগ কোম্পানির দর বৃদ্ধি পেয়েছে। সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের ২ টাকায় ৬০ পয়সা বা ৪ দশমিক ৮৯ শতাংশ, ফরচুন শুজের ৪ টাকা ৪০ পয়সা বা ৪ দশমিক ১৭ শতাংশ, সমতা লেদারের দুই টাকা ৩০ পয়সা বা ৩ দশমিক ৫২ শতাংশ।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে ২৩টির মধ্যে শতভাগ কোম্পানির দর বৃদ্ধি পেয়েছে। এ খাতে সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে জিবিবি পাওয়ারের ১ টাকা ২০ পয়সা বা ৫ দশমিক ৭১ শতাংশ, ইস্টার্ন লুব্রিক্যান্টসের ৭৪ টাকা ৫০ পয়সা ৫ দশমিক ৩২ শতাংশ, খুলনা পাওয়ারের ১ টাকা ৪০ পয়সা বা ৫ দশমিক ১৭ শতাংশ।

সিরামিক খাতে ৫টির মধ্যে শতভাগ কোম্পানির দর বৃদ্ধি পেয়েছে। সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে শাইনপুকুর সিরামিকসের ২ টাকা ৭০ পয়সা বা ৭ দশমিক ৪২ শতাংশ, ফু-ওয়াং সিরামিকের ১ টাকা ২০ পয়সা বা ৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের ৮ টাকা ৭০ পয়সা বা ৬ দশমিক ৯০ শতাংশ।

সেবা ও আবাসন খাতে শতভাগ কোম্পানির দর বৃদ্ধি পেয়েছে। সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে সাইফ পাওয়ারটেকের ২ টাকা ৬০ পয়সা বা ৮ দশমিক ৫০ শতাংশ, শমরিতা হসপিটালের ৪ টাকা ২০ পয়সা বা ৬ দশমিক ১৯ শতাংশ, সামিট অ্যালায়েন্স পোর্টের ১ টাকা ৫০ পয়সা ৫ দশমিক ২৮ শতাংশ।

ভ্রমণ ও অবকাশ খাতের শতভাগ কোম্পানির দরবৃদ্ধি পেয়েছে। সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে পেনিনসুলা হোটেলের ১ টাকা ২০ পয়সা বা ৪ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ, ইউনিক হোটেলের ২ টাকা ৪০ পয়সা বা ৩ দশমিক ৮৭ শতাংশ, সি পার্ল হোটেলের ১ টাকা ৪০ পয়সা বা ৩ দশমিক ২৬ শতাংশ। ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৮৩৩ কোটি ৬১ লাখ টাকার; যা আগের কার্যদিবস থেকে ২৯৪ কোটি ৪৯ লাখ টাকা বেশি। আগের কার্যদিবস লেনদেন হয়েছিল ৫৩৯ কোটি ১২ লাখ টাকার।

ডিএসইতে ৩৭৭টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৩৪২টির বা ৯০ দশমিক ৭২ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। দর কমেছে ২৫টির বা ৬ দশমিক ৬৩ শতাংশের এবং ১০টির বা ২ দশমিক ৬৫ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত ছিল।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।