ইউএই’কে আরো বাংলাদেশী শ্রমিক নিয়োগের আহ্বান জানাবে ঢাকা


Published: 2018-01-21 14:02:00 BdST, Updated: 2021-06-24 21:27:33 BdST

বিজনেস ওয়াচ প্রতিবেদক: বাংলাদেশ ও ইউএই’র ৪র্থ জয়েন্ট কমিশন বৈঠক ৫ ও ৬ ফেব্রুয়ারি আবুধাবীতে অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠকের প্রধান আলোচ্য হবে দু’দেশের মধ্যকার সম্পর্ক জোরদার করা। এতে ঢাকা ইউএইতে আরো বাংলাদেশী শ্রমিক নিয়োগের আহ্বান জানাবে।

বৈঠকে বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধিত্ব করবেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এবং ইউএই প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন ইউএই’র পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) একজন কর্মকর্তা বাসস’কে একথা জানান।
এই কর্মকর্তা বলেন, বৈঠকে মূলতঃ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদারের ওপর গুরুত্বারোপের পাশাপাশি বাংলাদেশ থেকে আরো বেশি জনশক্তি প্রেরণের বিষয়েও আলোচনা হবে।

এ প্রসঙ্গে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী বাসসকে বলেন, দু’দেশের সম্পর্ক আরো জোরদারের বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা হবে। এছাড়া ইউএইতে আরো বাংলাদেশী শ্রমিক প্রেরণ এবং দ্বিপক্ষীয় ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্প্রসারণ ও বাংলাদেশে ইউএই’র বিনিয়োগ নিয়েও আলোচনা হবে।

বর্তমানে ইউএইতে বাংলাদেশী দক্ষ ও আধা-দক্ষ শ্রমিকরা ইলেক্ট্রো-মেকানিক্যাল, হসপিটালিটি, নির্মাণ, ড্রাইভিং ও মিউনিসিপাল সার্ভিসে কাজ করছে। অনেকে ব্যবসায়েও নিয়োজিত রয়েছে। ৮ বছর পর অনুষ্ঠিত হবে এই ৪র্থ বৈঠক। এর আগে তৃতীয় বৈঠক ২০০৯, দ্বিতীয় বৈঠক ১৯৯১ এবং প্রথম বৈঠক ১৯৮১ সালে আবুধাবীতে অনুষ্ঠিত হয়।

ইআরডি’র অপর একজন কর্মকর্তা বলেন, আসন্ন বৈঠকে বাংলাদেশের জাহাজ তৈরি, পর্যটন ও ওষুধ শিল্পে বিনিয়োগের বিষয়েও আলোচনা হবে। এছাড়া হোটেল ও মোটেল স্থাপন ও পর্যটন কর্মী তৈরিতে বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তুলতে ইউএই’র সহায়তা নিয়েও আলোচনা হবে। বাংলাদেশে একটি পর্যটন অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য দেশটিকে আহ্বান জানানো হবে। বাংলাদেশ থেকে ওষুধ রফতানি এবং ২০২০-দুবাই এক্সপোতে বাংলাদেশের বড় ধরনের অংশগ্রহণের ব্যাপারেও বৈঠকে আলোচনা হবে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ও ইউএই’র মধ্যে জেনারেল ট্রেড এগ্রিমেন্ট স্বাক্ষরিত হয় ১৯৮৪ সালে। ওই সময় দু’দেশের মধ্যকার বাণিজ্য উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে ১ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।