বাংলাদেশী কর্মীরা গ্রীসের অর্থনীতিতে ইতিবাচক অবদান রাখবে: শ্রমসচিব


Published: 2018-06-02 14:17:07 BdST, Updated: 2021-09-28 07:27:26 BdST

বিজনেস ওয়াচ প্রতিবেদক: বাংলাদেশ থেকে চাহিদা অনুসারে দক্ষ কর্মী নেয়া শুরু হলে তা গ্রীসের অর্থনীতিতে ইতিবাচক অবদান রাখার পাশাপাশি বাংলাদেশও উপকৃত হবে। গ্রীসের লেবার, সোশ্যাল সিকিউরিটি এন্ড সলিডারিটি মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি জেনারেল আন্দ্রেয়াস নেফালুডিস সাথে অনুষ্ঠিত এক বৈঠক এসব কথা বলেন শ্রম মন্ত্রণালয়ে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. নমিতা হালদার এনডিসি। গত ৩১ মে গ্রীসের রাজধানী এথেন্সে অবস্থিত গ্রীসের শ্রম মন্ত্রণালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
বৈঠকে ড. নমিতা হালদার গ্রীসের লেবার, সোশ্যাল সিকিউরিটি এন্ড সলিডারিটি মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি জেনারেল জানান, বর্তমানে গ্রীসের কৃষিক্ষেত্রে ৬ মাসের জন্য বৈধভাবে কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে, তা বাংলাদেশী কর্মীদের জন্য আর্থিকভাবে লাভজনক নয়। তাই দ্বিপাক্ষিক চুক্তির আওতায় বাংলাদেশী কর্মী নিয়োগের এবং মৌসুমি কর্মীদের মেয়াদ ৬ মাসের স্থলে ২ বছর করার অনুরোধ জানান তিনি। এছাড়া বাংলাদেশে ৭০টি ট্রেনিং সেন্টারে কর্মীদের বিভিন্ন পেশা যেমন গার্মেন্টস, কেয়ার-গিভিং, হাউজ-কিপিং এবং বিভিন্ন ভাষার প্রশিক্ষণ প্রদান করার বিষয়টি গ্রীসের লেবার, সোশ্যাল সিকিউরিটি এন্ড সলিডারিটি মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি জেনারেলকে জানান।
এসময় গ্রীসের শ্রম মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি জেনারেল বলেন, গ্রীস প্রবাসী বাংলাদেশী শ্রমিকদের কল্যাণের বিষয়ে গ্রীক সরকার সর্বোতভাবে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। বৈধ প্রবাসী বাংলাদেশী কর্মীগণ গ্রীক নাগরিকদের মত বেতন ভাতা ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা সমানভাবে ভোগ করে থাকেন। সম্পর্ক উন্নয়ন এবং শ্রমিকদের কল্যাণ ও কাজের সুযোগ সুবিধা বিষয়ক দ্বিপাক্ষিক এ বৈঠকটি অত্যন্ত ফলপ্রসূ হয়েছে বলে উল্লেখ করেন আন্দ্রেয়াস নেফালুডিস। ভবিষ্যতে আইনানুযায়ী সুযোগ সৃষ্টি হলে নতুন উত্থাপিত এবিষয়গুলোর বিবেচনা করবেন বলে উল্লেখ করেন তিনি। এছাড়া গ্রীসের কৃষি, গার্মেন্টস এবং রেস্টুরেন্টে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশী কাজ করেন। বৈঠকে গ্রীসের কর্মী নিয়োগ প্রক্রিয়া, বাংলাদেশী কর্মীদের জন্য কি কি ধরণের কাজের সুযোগ আছে এবং ভবিষ্যতে সেখানে আরও কর্মী নিয়োগ দেওয়া যায় কিনা এ সকল বিষয় সেক্রেটারি জেনারেল বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলকে অবহিত করেন। উল্লেখ্য গ্রীসের পর্যটন, রেস্টুরেন্ট, গার্মেন্টস, কৃষি, কেয়ার গিভিং ও হাউজ কিপিং সেক্টরে বাংলাদেশী কর্মীর চাহিদা রয়েছে।
এসময় ড. নমিতা হাওদার বলেন, শ্রমবাজারে সুযোগ সৃষ্টির মাধ্যমে দক্ষ জনশক্তি বিভিন্ন দেশে প্রেরণ করা হলে তা ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত দেশে পরিণত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ‘রূপকল্প ২০৪১’ বাস্তবায়নে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে।
অত্যন্ত আন্তরিক ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত বৈঠকটিতে গ্রীক শ্রম মন্ত্রণালয়ের পক্ষে আরও উপস্তথিত ছিলেন, ডিরেক্টরেট অফ এমপ্লয়মেন্ট ইন্ট্রিগ্রেশন নেরাটযিস জর্জিওস; ডিরেক্টরেট অফ পারসোনাল সেটেলমেন্টস থিওডরা স্তাথুপুলু, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের লিয়ানা কারাগিয়ান্নি। অপরদিকে, এথেন্সে অবসস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষে ড. সৈয়দা ফারহানা নূর চৌধুরী, কাউন্সেলর (শ্রম), প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিদের মধ্যে উপসচিব মোঃ জাহিদ হোসেন, উপসচিব আরিফ আহমেদ, এবং ওয়েজ আর্নাস কল্যাণ বোর্ডের পরিচালক মোহাম্মাদ জহিরুল ইসলাম বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। এর আগে গ্রীসে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মোঃ জসীম উদ্দিনের সভাপতিত্বে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. নমিতা হালদার এনডিসি দূতাবাস প্রাঙ্গণে প্রবাসী বাংলাদেশীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। সভায় প্রবাসীগণ তাদের বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরে এর দ্রুত সমাধানের জন্য অনুরোধ করেন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।