শুক্রবার, ১৪ জুন, ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

যমুনা সার কারখানায় ফের বন্ধ উৎপাদন


Published: 2023-09-07 18:09:44 BdST, Updated: 2024-06-14 22:40:20 BdST


বিজনেস ওয়াচ ডেস্ক : জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে অবস্থিত যমুনা সার কারখানায় (জেএফসিএল) ইউরিয়া উৎপাদন অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে গেছে। গ্যাসের চাপ কমে আসার পাশাপাশি ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে ইউরিয়া উৎপাদন পুরোপুরি বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। সোমবার দুপুর আড়াইটা থেকে ফের গ্যাসের চাপ হঠাৎ কমে যায়। ফলে গতকাল সকাল থেকে কারখানায় ইউরিয়া সার উৎপাদন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে। জেএফসিএল সূত্র জানায়, বাংলাদেশ রাসায়নিক শিল্প সংস্থা (বিসিআইসি) নিয়ন্ত্রণাধীন কেপিআই-১ মানসম্পন্ন যমুনা সার কারখানা প্রতিষ্ঠার শুরু থেকে দৈনিক ১ হাজার ৭০০ মেট্রিক টন ইউরিয়া উৎপাদন করে আসছিল। কয়েক বছর ধরে গ্যাসের চাপ স্বল্পতা ও মেশিনারিজ ত্রুটির জন্য উৎপাদন কমে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২০০ মেট্রিক টনে নেমে আসে। এর মধ্যে প্রতিবছর দুএকবার কর্তৃপক্ষ গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করায় সার উৎপাদন চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, সম্প্রতি ঘোড়াশাল-পলাশ ইউরিয়া ফার্টিলাইজার কোম্পানিতে সার উৎপাদন নিরবচ্ছিন্ন রাখার সিদ্ধান্ত নেয় বিসিআইসি। এ জন্য সেখানে পর্যাপ্ত গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করতে যমুনা সার কারখানায় গ্যাসের চাপ কমানো হয়েছে। জেএফসিএল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের (সিবিএ) সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, যমুনা সার কারখানার সারের গুণগত মান অন্যান্য যে কোনো কারখানার চেয়ে ভালো এবং যমুনা সার কারখানা বৃহত্তর ময়মনসিংহসহ উত্তরাঞ্চলের ২০টি জেলায় সারের চাহিদা পূরণ করে আসছে। উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমরা শঙ্কিত। এদিকে কারখানার উৎপাদন বন্ধের কারণে জামালপুর, শেরপুর, টাঙ্গাইল ও উত্তরবঙ্গসহ ১৬ জেলায় চলতি রোপা আমন মৌসুমে ইউরিয়া সারের সংকটের আশঙ্কা করছেন সার ডিলার ও কৃষকরা। তবে কারখানা কর্তৃপক্ষ বলছে, সার মজুদ আছে, কোনো সংকট হবে না। এর আগে গত ৫ ফেব্রুয়ারি রিফরমার টিউব লিকেজ দেখা দেওয়ায় ইউরিয়া উৎপাদন বন্ধ করে দেয় যমুনা সার কারখানা কর্তৃপক্ষ।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।