সোমবার, ৫ ডিসেম্বার, ২০২২, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ঋণ পেতে যেসব বিষয়ে গুরুত্ব দিতে বলেছে আইএমএফ


Published: 2022-11-10 12:11:03 BdST, Updated: 2022-12-05 03:57:40 BdST


নিজস্ব প্রতিবেদক : আর্থিক খাতকে আরও শক্তিশালী ও সুযোগ তৈরি, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, মুদ্রানীতির কাঠামোগত পরিবর্তন, প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনা বৃদ্ধি এবং জলবায়ু সহিষ্ণুতা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকারকে আরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। বুধবার (০৯ নভেম্বর) সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রণালয়ে ঢাকায় দুই সপ্তাহের সফর এবং আলোচনার ফলাফল তুলে ধরতে আলাদা সংবাদ সম্মেলনে আসেন আইএমএফ প্রতিনিধি দলের নেতা এবং সংস্থার এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রধান রাহুল আনন্দ। সংবাদ সম্মেলনে এই গুরুত্বের কথা জানানো হয়। ঋণ নিতে বাংলাদেশকে ঠিক কী কী শর্ত মানতে হবে তা কোনো পক্ষই আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়নি। তবে আইএমএফের এই সফর নিয়ে একটি সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেছেন, আইএমএফের অনেক শর্ত নিয়ে সরকার ইত্যোমধ্যে কাজ করছে। যেমন রেভিনিউ বাড়ানো, অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি করার মতো শর্ত-এ নিয়ে আমরা অনেকগুলো মিটিং করেছি। তাদের শর্ত আমাদের শর্ত একই হলো। সংবাদ সম্মেলনে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ৪২ মাসের চুক্তিতে সরকারের নেওয়া ‘অর্থনৈতিক সংস্কার কর্মসূচিতে’ সহায়তা হিসেবে আইএমএফের এক্সটেন্ডেড ক্রেডিট ফ্যাসিলিটি (ইসিএফ) এবং এক্সটেন্ডেড ফান্ড ফ্যাসিলিটি থেকে ৩২০ কোটি ডলার ঋণ পাবে বাংলাদেশ। আর রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাসটেইনিবিলিটি ফ্যাসিলিটির (আরএসএফ) আওতায় পাবে বাকি ১৩০ কোটি ডলার। এ ঋণের অর্থ দিয়ে যেসব প্রকল্প বাংলাদেশ সরকার হাতে নেবে, তার উদ্দেশ্য হবে সামষ্টিক অর্থনীতিকে স্থিতিশীল রাখা এবং দুর্দশায় পড়া জনগোষ্ঠীকে সুরক্ষা দিয়ে দৃঢ়, অর্ন্তভুক্তিমূলক এবং পরিবেশবান্ধব অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এগিয়ে নেওয়া। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সামষ্টিক অর্থনীতির ঝুঁকি কমিয়ে আনতেও এই ঋণের অর্থ ব্যয় করা হবে।

অর্থমন্ত্রী তার সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, আইএমএফ টিম আমাদের চলমান অর্থনৈতিক সংস্কারের সঙ্গে একমত পোষণ করেছে। সে অনুযায়ী আমরা চার বছর মেয়াদী ঋণ কর্মসূচি নিতে যাচ্ছি। এই বাস্তবতায় এবং সামষ্টিক অর্থনীতির স্থিতিশীলতা রক্ষায় নেওয়া আগের উদ্যোগগুলোর ধারাবাহিতায় বাংলাদেশ সরকার আইএমএপের সহযোগিতায় বাস্তবায়নের জন্য একটি পরিকল্পনা সাজিয়েছে, যা ঝুঁকি কমিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান মজবুত করবে এবং সামাজিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন এবং জলবায়ু ঝুঁকি প্রশমনের কাজ ত্বরান্বিত করে শক্তিশালী ও অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি অর্জনের ক্ষেত্র প্রস্তুত করবে। আইএমএফ বলছে, আর্থিক খাতে আরও বেশি সুযোগ তৈরি, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, মুদ্রানীতির কাঠামোগত পরিবর্তন, আর্থিক খাতকে আরও শক্তিশালী করা, প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনা বৃদ্ধি এবং জলবায়ু সহিষ্ণুতা গড়ে তোলা হবে এই পরিকল্পনার গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি অংশ। এরমধ্যে আইএমএপের যেসব শর্তের কথা গণমাধ্যমে এসেছে সেগুলো হলো- রাজস্ব বাড়ানো এবং যৌক্তিক ব্যয় ব্যবস্থা চালু করা। বিশেষ করে প্রবৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখার বিষয়টি বিবেচনায় রেখে ব্যয় নির্ধারণ করা। যারা নাজুক অবস্থায় থাকবে, সেসব খাত লক্ষ্য করে সুনির্দিষ্ট সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচি নেওয়া। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ এবং আধুনিক মুদ্রানীতি তৈরি করা। সেই সঙ্গে মুদ্রা বিনিময় হার আরও নমনীয় করে তোলা। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারবে আধুনিক মুদ্রানীতি। আর্থিক খাতের দুর্বলতা দূর করা, নজরদারি বাড়ানো, সরকার ও নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের আওতা বৃদ্ধির পাশাপাশি পুঁজিবাজারের উন্নয়ন করা। বাণিজ্য ও বৈদেশিক বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে পরিবেশে তৈরি, মানব দক্ষতা বৃদ্ধি, আর্থিক খাতে সুশাসন নিশ্চিত করে ব্যবসায়িক পরিবেশ উন্নত করা। জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতি কাটাতে প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করে তোলা, পরিবেশের উন্নতির পদক্ষেপ নেওয়া এবং জলবায়ু সংক্রান্ত খাতে আরও বিনিয়োগ ও আর্থিক সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে।

এদিকে আইএমএফের এই ঋণ কর্মসূচির ক্ষেত্রে চারটি লক্ষ্যের কথা বলা হয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে। সেগুলো হলো- অর্থনীতির বহিঃখাতকে স্থিতিশীল করা; ২০২৬ সালে এলডিসি থেকে উত্তরণ সামনে রেখে অর্থনীতিকে শক্ত ভিত্তি দেওয়া; আর্থিক খাতকে শক্তিশালী করা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবিলা করে উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন এবং সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়া। যে সংস্কার কার্যক্রমের কথা বলা হচ্ছে, সে বিষয়ে মন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে বিবৃতিতে বলা হয়, সরকারের বাজেট ঘাটতি ধারণযোগ্য পর্যায়ে রাখা হবে, যা গত প্রায় ১৪ বছর যাবত আমরা করে আসছি। আমাদের সরকারের সবসময় প্রচেষ্টা থাকে বাজেট ঘাটতিকে জিডিপির ৫ শতাংশের মধ্যে সীমিত রাখা। গত বছর আমাদের বাজেট ঘাটতি ছিল ৫.১ শতাংশ যা এই অর্থবছরে ৫.৫ শতাংশ ধরা আছে। স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও সামাজিক নিরাপত্তার মত সামাজিক খাতে সরকারের ব্যয় বৃদ্ধি করা হবে, যা আমরা প্রতি অর্থবছরে ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি করছি। সামাজিক নিরাপত্তা খাতে চলতি অর্থবছরে আমাদের বরাদ্দ রয়েছে ১ লাখ ১৩ হাজার ৫৭৬ কোটি টাকা, যা মোট বাজেটের প্রায় ১৭%। আর্থিক খাতের জন্য ‘গুরুত্বপূর্ণ’ নতুন কয়েকটি আইন প্রণয়ন এবং পুরোনো কয়েকটি আইন ‘সংশোধনের’ কাজ ত্বরান্বিত করাও হবে এই সংস্কার কার্যক্রমের অংশ। এ বিষয়ে সরকারের বিবৃতিতে বলা হয়, “রাজস্ব ব্যবস্থার সংস্কার জোরদার এবং কর প্রশাসনের দক্ষতা বাড়ানোর মাধ্যমে সরকারের রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি করা হবে। ভ্যাট আদায়ের জন্য আমরা ইএফডি মেশিন স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছি। এযাবৎ ৬,৭৩২টি মেশিন স্থাপন করা হয়েছে। আগামী বছরে আরো ৬০ হাজার মেশিন স্থাপন করা হবে এবং পরবর্তী ৪ বছরে ২ লাখ ৪০ হাজার মেশিন স্থাপিত হবে। ”

জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয়ের ব্যবস্থাটি আন্তর্জাতিক বাজারের মূল্যের সাথে সমন্বয় করা এবং টাকার বিনিময় হার নির্ধারণের কাজটিও ধীরে ধীরে বাজারের উপর ছেড়ে দেওয়ার কথা সংস্কারের তালিকায় রয়েছে। আর সেসব কাজ বাংলাদেশ ইতোমধ্যে ‘শুরু করেছে’ বলে অর্থমন্ত্রীর ভাষ্য। সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকির বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা এবং সেদিকে লক্ষ্য রেখে উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ; দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করে একটি দুর্যোগ ঝুঁকি অর্থায়নের পরিকল্পনা করার কথাও বলা হয়েছে সরকারের বিবৃতিতে। উল্লেখ্য, কোভিড মহামারীর ধাক্কা সামলে বাংলাদেশের অর্থনীতি ভালোভাবে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করলেও ইউক্রেন যুদ্ধের জেরে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বড় ধরনের চাপে পড়েছে; ডলারের বিপরীতে মান হারিয়ে চলছে টাকা, মূল্যস্ফীতিও পৌঁছেছে উদ্বেগজনক পর্যায়ে। রিজার্ভ ধরে রাখতে আমদানিতে লাগাম টানায় অর্থনীতি সঙ্কুচিত হয়েছে; জ্বালানি সংকটের মুখে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে উৎপাদন। পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের মত দীর্ঘমেয়াদী ঝুঁকিও বাংলাদেশের সামনে রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতেই গত জুলাই মাসে আইএমএফ এর কাছে ঋণ চেয়েছিল বাংলাদেশ। প্রাথমিক সম্মতি জানানোর পর শর্ত নিয়ে আলোচনার জন্য রাহুল আনন্দের নেতৃত্বে আইএমএফ প্রতিনিধিরা অক্টোবরের শেষে ঢাকায় আসেন। গত দুই সপ্তাহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তর, নিয়ন্ত্রক সংস্থা এবং অংশীজনদের সঙ্গে তারা ধারাবাহিক বৈঠক করেছেন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।