শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১

বরগুনাতে নির্মাণ হবে জাহাজ পুন:প্রক্রিয়াজাতের আধুনিক শিল্পাঞ্চল


Published: 2020-03-13 23:51:50 BdST, Updated: 2024-07-13 05:08:11 BdST


বিজনেস ওয়াচ প্রতিবেদক:
বরগুনাতে নির্মাণ হবে জাহাজ পুন:প্রক্রিয়াজাকরণের আধুনিক শিল্প। জাহাজ পুন:প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পাঞ্চলকে চট্টগ্রামের বাইরে দেশের অন্যত্র ছড়িয়েছে দেয়ার প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে বরগুনাতে এ শিল্প স্থাপন করার উদ্যোগ নিয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়। এ জন্য ১ হাজার ৮১৪ কোটি ৭৭ লাখ টাকার প্রকল্প তৈরি করা হয়েছে। ইতোমধ্যে এ প্রকল্পের ডিপিপি তৈরি করা হয়েছে। আগামী সপ্তাহে তা পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও জাহাজ পুন:প্রক্রিয়া বোর্ডের মহাপরিচালক একেএম শামছুল আরেফীন । টানা তিন বছর ধরে সমদ্রগামী বড়বড় জাহাজ পুন:প্রক্রিয়াকরণের সাথে জড়িত আছেন তিনি।
তিনি জানান, জাহাজ পুন:প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পকে চট্টগ্রামের বাইরে দেশের অন্যত্র ছড়িয়েছে দেয়ার প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে বরগুনাতে এ ইয়ার্ড নির্মাণ করা হবে।
জানা গেছে, পরিবেশবান্ধব গ্রীণ জাহাজ পুন:প্রক্রিয়াজাকরণ ইয়ার্ড নির্মাণে বরগুনা জেলার তালতলি উপজেলার নিশানবাড়িয়া মৌজায় ১০৫ একর জমি অধিগ্রহণের জন জেলা প্রশাসককে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়া শিল্পমন্ত্রণালয় অধিন বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কপোরেশনকে (বিএসইসি) এ প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচায়ের জন্য ৪ দশমিক ৯৮ কোটি টাকার একটি প্রকল্প গ্রহণ করে । বিএসইসি ইতোমধ্যে এ প্রকল্পের কারিগরি ও অর্থনৈতিক সমিক্ষা পরিচালনার জন্য পরামর্শক নিয়োগ এবং প্রকল্পের পরিবেশগত প্রভাব কি হতে পারে তার সমীক্ষা প্রতিবেদন নেয়ার প্রক্রিয়া শেষ করেছে।
শিল্পমন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (জাহাজ পুন:প্রক্রিয়া) একেএম শামছুল আরেফীন বলেন, সর্বোচ্চ ১ লাখ ৭৫ হাজার কোটি টনের জাহাজ পুন:প্রক্রিয়াকরণে সক্ষম হবে বরগুনার ই্য়ার্ড। এখানে দুটি ইয়ার্ড নির্মাণ করা হবে। এই ইয়ার্ড থেকে পরিবেশের কোনো ধরনের ক্ষতি হবে না। সেভাবেই ইয়ার্ড দুটি নির্মাণ করা হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে থেকে ডিপিপি অনুমোদন হয়ে আসতে আরো ৩ মাস সময় লাগতে পারে। এরপর একনেক সভায় তা অনুমোদিত হওয়ার পর অর্থ পাওয়া সাপেক্ষে ৩ বছরেই কাজ শেষ করা যাবে বলে আশা করেন তিনি।
তিনি আরো বলেন, বর্তমানে শিল্পমন্ত্রণালয়ের অধিনে চট্টগ্রামের সিতাকুন্ড ইয়ার্ড থেকে বছরে প্রায় ২০ লাখ টন স্ক্র্যাপ তৈরি করা হয়। যদিও আমাদের চাহিদা প্রায় ৩০ লাখ টন। বাকীঁ ১০ টন চিনসহ অন্যান্য দেশ থেকে আমদানি করা হয়। বরগুনার এ ই্য়ার্ড নির্মাণ হলে দেশের চাহিদার পুরোটায় আমরা সরবরাহ করতে পারবো বলে আশা করছি।
বরগুনার এ জাহাজ পুন:প্রক্রিয়াকরণ ইয়ার্ডটি সম্পন্নরুপে গ্রীণ ইয়ার্ড হবে। এ ইয়ার্ড নির্মাণ করতে হলে স্থানিয় প্রায় ৩০০ শত পরিবারকে পুরর্বাসন করতে হবে। আমারা প্রকল্পে সেই ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কক্সবাজারের খরুশকল মডেলের আদলে তাদের পুনর্বাসন করা হবে। তবে এর জন্য আলাদা বাজেট প্রস্তাব করা হবে।
উল্লেখ্য, খরুসকলে স্থানিয়দের পুনর্বাসনের জন্য ৬৫টি ১০তলা ভবন নির্মাণ করার ব্যবস্থা রয়েছে। সেখানে স্কুল কলেজ, মাদ্রাসা হাসপাতাল বাজার ইন্টারনেট, বিদ্যুতসহ সকল আধুনিক সুবিধার ব্যবস্থা রয়েছে।

 

 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।