সোমবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১

মার্কিন ভিসা নিষেধাজ্ঞা, ইইউ পার্লামেন্টে প্রস্তাব, জিএসপি সংকট, বাংলাদেশের অর্থ ও বাণিজ্যে প্রভাব


Published: 2023-09-23 12:26:11 BdST, Updated: 2024-04-15 00:27:59 BdST


কুদরাত-ই-খোদা

আসন্ন জাতীয় সংসদের নির্বাচন যতটা এগিয়ে আসছে,ততটাই নির্বাচনের প্রশ্নে এক ধরণের অনিশ্চয়তা দেখা দিচ্ছে । সুষ্ঠ, অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচনের প্রশ্নে অব্যাহত আন্তর্জাতিক চাপ কতটা নিতে পারবে সরকার, এটার উপরেই অনেক কিছু নির্ভর করছে । তবে এটা নিশ্চিত যে, ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মতো নির্বাচন সম্পোন্ন করা ২০২৪ সালে সম্ভব হবে না । ইউরোপিয় ইউনিয়নের পার্লামেন্টে যেই প্রস্তাব পাশ হয়েছে, সেটা শেখ হাসিনা সরকারের জন্য অন্য রকম রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক চাপ । যদি ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন বাংলাদেশের উপর থেকে জিএসপি সুবিধা প্রত্যাহার করে আমাদের অর্থনীতি কঠিন চাপে পরবে । এ নিয়ে ব্যবসায়ী মহলে নানা গুঞ্জন ও কথাবার্তা চলছে । পাশাপাশি মার্কিন ভিসা নীতি ঘোষণার পর, বেশ কয়েকজন প্রাক্তন সরকারি কর্মকর্তা ও বর্তমান বেশ কয়েকজন বিশিষ্ট জনের ভিসা না পাওয়ার খবরে সরকারের মধ্যে অস্বস্থি সৃষ্টি হয়েছে । এই লেখাটা যখন প্রকাশিত হবে, তখন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ জাতিসংঘের অধিবেষনে অংশগ্রহণ করছেন এবং সেই নিরিখে উনি আমেরিকায় অবস্থান করছেন।


বর্তমান আন্তর্জাতিক বলয়ে বাংলাদেশের অবস্থান কোথায় তা নতুন করে ভাববার অবকাশ সৃষ্টি হয়েছে । এদিকে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি সহ সমমনা দলগুলো সরকার পতনের এক দফা আন্দোলনের ব্যাপারে চূড়ান্ত কর্মসূচী ঘোষণা করেছে । আগামী অক্টোবারের শেষ সপ্তাহ নাগাদ রাজনৈতিক দলগুলো একটি রফাদফা চায় । এদিকে ক্রমবর্ধমান মূল্যস্পিতী, ডলার সংকট , রেমিটেন্স রাশ এবং রিজার্ভ কমে যাওয়া, দেশের অর্থনীতির জন্য একটি সংকট বটে ।
এদিকে গতকাল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের পক্ষ থেকে একটি প্রেস বিবৃতির মাধ্যমে জানানো হয় যে বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক নির্বাচন প্রক্রিয়ায় বাধাদানকারী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে তারা ভিসা বিধিনিষেধ আরোপের পদক্ষেপ শুরু করেছেন । এর পরপরই ঢাকায় মার্কিন দূতাবাসের মুখপাত্র ব্রায়ান শিলার জানান যে এরই মধ্যে কয়েকজন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য সহ ক্ষমতা্সীন দল এমনকি রাজনৈতিক বিরোধীদের ওপরও ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে । তবে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত, এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় আসা ব্যক্তিদের কোনো তালিকা পাওয়া সম্ভব হয়নি । কোনো তালিকা প্রকাশ করা হবে কিনা, এমন প্রশ্নের উত্তরে ব্রায়ান শিলার জানান যে, মার্কিন যুক্ত্রাষ্ট্রের আইনে ভিসা রেকর্ড গোপনীয় বিষয় হওয়াতে, কোনো রকম তালিকা প্রকাশ করা হবে না । তবে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম শুক্রবার রাতে তার নিজ বাসায় একদল সাংবাদিককে, ভিসা নিষেধাজ্ঞায় আওতায় আসা ব্যক্তিদের সংখ্যা নিয়ে তার স্পষ্ট জানা নেই বলে জানান, তবে এটাও বলেন যে সংখ্যাটি বড় নয়, ছোট ।


ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের পার্লামেন্টে প্রস্তাব পাশ থেকে শুরু করে শুক্রবারে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের বিবৃতি, জাতীয় নির্বাচনের আর মাত্র কয়েক মাস বাকি থাকতে ক্ষমতাসীন সরকারের নিজেদেরকে ভূরাজনৈতিক দিক থেকে কোণঠাসা লাগতেই পারে । বর্তমানে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা এবং ভবিষ্যতে জিএসপি নিয়ে অনিশ্চয়তা, দুটোই বিশ্ব রাজনীতি ও ব্যবসায়িক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশকে যথেষ্ট নাজুক করে দিতে সক্ষম । এছাড়াও জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইউরোপীয় ইউনিয়ন কোনো পর্যবেক্ষক দল পাঠাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে । তবে নির্বাচনে পর্যবেক্ষক দল পাঠাবে কিনা - এটা নিয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি যুক্তরাষ্ট্র । অক্টোবরে তাদের একটি প্রাক-নির্বাচন পর্যবেক্ষক দল ঢাকায় আসার কথা রয়েছে । তাদের রিপোর্টের উপর ভিত্তি করেই পর্যবেক্ষক দল পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেবে যুক্তরাষ্ট্র । যদি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের দেখানো পথ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও অনুসরণ করে, তাহলে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের নির্বাচন তার গ্রহণযোগ্যতা হারানোর শংকা রয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা । ক্ষমতাসীন দলের মন্ত্রী ও অন্যান্য নেতারা প্রকাশ্যে কোনো চাপে নেই বললেও, সূত্র মতে তারাও প্রচন্ড চাপ অনুভব করছেন । বর্তমান সরকারের প্রায় ১৫ বছর ক্ষমতাসীন থাকাকালে, এবারই প্রথম পশ্চিমাদের বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে এতটা দৌড়ঝাপ দেখা যাচ্ছে । আর তাই একদিকে বিরোধী দলের আন্দোলনের ডাক ও অন্যদিকে আন্তর্জাতিক চাপের বিবেচনায় সামনের অক্টোবার মাসকে বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক প্রবাহের ধারাবাহিকতায় সরকারের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে ।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।