আর্মি আইবিএ সম্ভাবনাময় এক ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটউট


Published: 2022-05-23 18:55:51 BdST, Updated: 2022-06-27 02:08:27 BdST


বিজনেস ওয়াচ প্রতিবেদক: ব্যবসায় ও অর্থনৈতিক খাতে বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আর সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় বাড়ছে ব্যবসায়িক কার্যক্রম। সেই সঙ্গে গেল বছরগুলোতে দেশিয় স্টার্টআপ আর ব্যক্তি উদ্যোগে নতুন নতুন খাত যোগ হওয়াটাও ছিল চোখে পড়ার মতো। ইন্টারনেট আর প্রযুক্তি সহজলভ্যতা বাড়তে থাকায় সহজ হয়েছে উদ্যোক্তা হওয়ার পথও।
ব্যবসা-বাণিজ্যের পরিধি যতো বাড়ছে, তার সঙ্গে বাড়ছে কর্মসংস্থানও। বর্তমান সময়ে দেশি আর বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে ব্যবসায় প্রশাসনে উচ্চ শিক্ষা লাভ করা শিক্ষার্থীদের নিয়োগ দেওয়ার চাহিদা যে অন্য বিষয়গুলোর তুলনায় বেশি তা সহজেই অনুমেয়। আর এ কারণে ব্যবসায় প্রশাসনে উচ্চ শিক্ষা নিতে আগ্রহী হয়ে উঠা শিক্ষার্থীদের সংখ্যাও বেড়ে চলেছে সমানভাবেই। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট বা ইনস্টিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনে (আইবিএ) উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের ঝোঁকও বাড়ছে।
আর্মি ইনস্টিটিউট অব বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন (আর্মি আইবিএ) বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পরিচালিত স্বায়ত্তশাসিত ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট। সিলেটের জালালাবাদ সেনানিবাসে ২০১৫ সালে যাত্রা শুরু করা ব্যবসায় প্রশাসনে উচ্চ শিক্ষার এই ইনস্টিটইউটটি সেনাবাহিনীর সরাসরি তত্ত্বাবধানে থাকা দেশের প্রথম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্রফেশনালস(বিইউপি)-এর অধিভুক্ত।
চায়ের দেশে সেনানিবাসের সবুজের সমারোহে নিরাপদ এই ক্যাম্পাসে নেই কোনো সেশনজট। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সরাসরি তত্ত্ববধান থাকায় সুশৃঙ্খল এই ইনস্টিটিউট হয়ে উঠেছে মেধাবীদের আগ্রহের জায়গা। শুধু ক্যাম্পাসের নিরাপত্তাই নয়, শিক্ষার্থীদের জরুরী স্বাস্থ্য সেবার কথা চিন্তা করে রাখা হয়েছে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ)- চিকিৎসার ব্যবস্থা।
একটি সুষ্ঠু নির্বাচন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আবেদনকারীদের মধ্যে থেকে সেরাদের বাছাই করে দেওয়া হয় ভর্তির সুযোগ। চার বছরের বিবিএ প্রোগ্রামে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীরা ফাইন্যান্স, অ্যাকাউন্টিং, ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম , মার্কেটিং, সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট, অপারেশন ম্যানেজমেন্ট এবং হিউমেন রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট- এর মধ্যে যে কোনো বিষয় মেজর হিসেবে বেছে নিতে পারবেন।
উচ্চ শিক্ষার কথা বলতে গেলেই অন্যতম গুরুত্বের বিষয় হিসেবে উঠে আসে গবেষণার কথা। মাত্র কয়েক বছরের যাত্রাপথে ইতোমধ্যেই প্রকাশিত হয়েছে জার্নাল, চলছে একাধিক গবেষণার কাজ। রয়েছে আইএসএসএন এবং ই-আইএসএসএন প্রাপ্ত আন্তর্জাতিক মানের রিসার্চ জার্নাল 'জালালাবাদ পেপার্স'। মেধাবীদের জন্য রয়েছে নানা ধরনের বৃত্তি সুবিধাও।
আমাদের দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যবহারিক জ্ঞানের চেয়ে তাত্ত্বিক জ্ঞান শেখানোর দিকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়ার নজির মেলে। অধিকাংশ সময়েই এ কারণের শিক্ষার্থীদের চাকরি পেতে বা কর্মজীবনে গিয়ে ভুক্তভোগী হতে হয়। আর্মি আইবিএ এদিক থেকে একদমই ব্যতিক্রম। কারিকুলামের অংশ হিসেবেই শিক্ষার্থীদের করতে হয় ফিল্ড ওয়ার্ক, অসংখ্য প্রেজেন্টেশনসহ নানা ধরনের অ্যাসাইনমেন্ট । বিভিন্ন কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানে ভিজিট করে অ্যাসাইনমেন্ট করার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা হাতে-কলমে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারেন। সেই সঙ্গে হয়ে যায় ইতোমধ্যেই বিভিন্ন খাতে থাকা পেশাজীবীদের সঙ্গে পরিচয়, কর্পোরেট দুনিয়ায় যাকে বলে নেটওয়ার্কিং। এর ফলে বিবিএ-এর শেষ দিকে ইন্টার্নশিপ পেতেও খুব একটা বেগ পেতে হয় না শিক্ষার্থীদের। ইন্টার্নশিপ পেতে সহায়তা করা হয় প্রতিষ্ঠান থেকেও।
এতো গেল পড়াশোনার কথা। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় জীবন মানেই যে বন্ধু, আড্ডা আর তারুণ্যের উদ্দীপনা, তার সুযোগ কতখানি? সেনাবাহিনীর কঠোর নিয়মের মধ্যে তা কী আর হয়!- না এমনটা ভাবার কোনো কারণই নেই। চায়ের রাজ্যের সেনানিবাসের নির্মল পরিবেশে শিক্ষার্থীদের আড্ডা, দলবেঁধে গান গাওয়ার মতো জায়গার অভাব নেই। এ প্রতিষ্ঠানে থাকা অভিজ্ঞ, দক্ষ শিক্ষক ও প্রশাসনের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পর্কও মধুর।
পড়াশোনার পাশাপাশি সহশিক্ষা কার্যক্রমের সুযোগও বিস্তৃত। ব্যবসায়, সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া, ফটোগ্রাফি, বিতর্ক-এর মতো নানা বিষয়ে জোর দিয়ে রয়েছে আলাদা আলাদা ক্লাব। সারা বছর ক্লাবগুলো নানা কার্যক্রমের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা পাচ্ছেন গতানুগতিক পড়াশোনার বাইরে বিভিন্ন অভিজ্ঞতা। বাস্তবমুখী পড়াশোনার সঙ্গে শিক্ষাজীবনে হওয়া নেটওয়ার্কিং আর বিভিন্ন নামিদামি কর্পোরেটে ইতোমধ্যে কর্মরত অ্যালামনাইদের সহযোগিতায় এখান থেকে পাশ করার পর নেহায়েত নিজের অনিচ্ছা ছাড়া কাউকে খুব বেশিদিন বেকার থাকতে দেখা যায় না।

চলতি বছরের ১৫ জুন পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানের সামনের শিক্ষাবর্ষের ভর্তি কার্যক্রমের আবেদন গ্রহন চলবে। জয়েন আর্মি আইবিএ ডটকম (লড়রহধৎসুরনধ.পড়স)-এই ওয়েবসাইটে ভিজিট করলেই প্রয়োজনীয় সব তথ্য পেয়ে যাবেন ভর্তিচ্ছুরা।

 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।